গমজাত পরিচিতি

বারি গম ৩৩

জাতের বিবরণ রোগবালাই ও দমন ব্যবস্থা

ফসলের নাম : গম
জাতের নাম : বারি গম ৩৩

বৈশিষ্ট্য :
• জিংক সমৃদ্ধ (৫৫-৬০ পিপিএম) এবং গমের ব্লাষ্ট রোগপ্রতিরোধী জাত।
• কান্ড শক্ত, সহজে হেলে পড়ে না।
• কান্ড ও পাতা গাঢ় সবুজ বর্ণের।
• শীষ লম্বা এবং প্রতি শীষে দানার সংখ্যা ৪২-৪৭ টি।
• দানার, চকচকে ও আকারে মাঝারী (হাজার দানার ওজন ৪৫-৫২ গ্রাম)।
• ঊপরের গীটে শুং আছে।
• নিশান পাতা চওড়া ও হেলানো।
উপযোগী এলাকা : সমগ্র বাংলাদেশের গম উৎপাদনকারী এলাকা সমূহ
বপনের সময় : ১৫ থেকে ৩০ নভেম্বর
মাড়াইয়ের সময়: মার্চরোগবালাই: রোগ বালাই প্রতিরোধী জাত
দমন ব্যবস্থা: ভাল দানার জন্য পরগায়নের আগে পরে ২ বার নটিভো-৭৫ দেয়া যেতে পারে, তবে আবশ্যিক নয়
পোকামাকড় ও দমন ব্যবস্থা
পোকামাকড়: পোকামাকড় প্রতিরোধী জাত
দমন ব্যবস্থা: প্রয়োজন নেই

সার ব্যবস্থাপনা
সারের নাম মোট পরিমাণ
ইউরিয়া ১৫০-১৭৫কেজি/হেক্টর
টিএসপি ১৩৫-১৫০কেজি/হেক্টর
এমপি ১০০-১১০কেজি/হেক্টর
জিপসাম ১১০-১২৫ কেজি/হেক্টর
গোবর/কম্পোষ্ট ৭-১০ টন/হেক্টর
চুড়ান্ত জমি প্রস্ত্ততির সময় ১/৩ অংশ ইঊরিয়া সার ছাড়া অন্যান্য সব সার জমিতে মিশিয়ে দিতে হবে এবং রক্ষিত ১/৩ অংশ ইঊরিয়া সার বপনের ১৭-২১ দিনের মাথায় সেচের সময় প্রয়োগ করতে হবে। :-
• প্রয়োজন বুঝে ২ থেকে ৩ টি সেচ তিন পাতা ধাপ (১৭-২১ দিন), সর্বাধিক কুশি ধাপ (৫০-৫৫ দিন) এবং দানা পুষ্টের সময় (৭৫-৮০ দিন) দিতে হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button